মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৯:০৫ অপরাহ্ন

সর্বশেষ সংবাদঃ
করোনা সংক্রমণ রোধে আতঙ্ক নয়, গণ সচেতনতাই উত্তম...নিরাপদ দুরত্বে পথ চলুন, খাবারের আগে সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে নিন.. নাক, মুখে হাত দেওয়া থেকে বিরত থাকুন...সবচেয়ে ভালো বাড়ীতেই থাকুন... ধন্যবাদ সবাইকে।
সংবাদ শিরোনামঃ
ধুনটে আসন্ন পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের কর্মীসভা নীলফামারীতে মডেল ফার্মেসির উদ্বোধন করলেন ঔষধ প্রশাসনের মহাপরিচালক নড়াইলে নোবেল বিজয়ী সাদাতকে সংবর্ধনা পার্বতীপুরে হত্যা মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত দুই আসামী গ্রেফতার দেশে ষ্টিল চিনামাটি ও প্লাষ্টিক সামগ্রীর ব্যবহার বৃদ্ধিতে- বিলুপ্তির পথে রাণীশংকৈলের কুমার শিল্প নীলফামারীতে বালুর টেন্ডার নিয়ে হিন্দুধর্মানুসারীদের ক্ষোভ- টেন্ডার বাতিলের দাবি কুমিল্লায় র‌্যাবের অভিযানে এ্যাম্বুলেন্স ও সিএনজিতে বিপুল পরিমান মাদক উদ্ধার ত্রিশালে ব্রীজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন- ব্যয় হবে ৩ কোটি ৫০ লাখ টাকা নড়াইলে ইজিবাইকচালকের গলা কেটে বাইক ছিনতাই সিরাজগঞ্জে গরু চুরির ভয়ে রাত জেগে পাহারা দিচ্ছে

কিশোরগঞ্জে মুক্তিযোদ্ধার নাতনি পরিচয়ে জালিয়াতি

আনোয়ার হোসেন- কিশোরগঞ্জে(নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ
বর্তমানে যে কোন ধরনের একটি চাকরি মানে সোনার হরিণ। সে ক্ষেত্রে একটি সরকারি চাকরি যেন সোনায় সোহাগা। যে কোন পর্যায়ে সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ নাতি-নাতনির মুক্তিযোদ্ধা কোটা রয়েছে। আর এই সুযোগটাই কাজে লাগিয়েছেন নীলফামারী কিশোরগঞ্জ উপজেলার খামার গাড়া গ্রাম সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সরকারী শিক্ষিকা সূর্য আক্তার।

তিনি অমুক্তিযোদ্ধার নাতনি মুক্তিযোদ্ধা’ পরিবারের নাতনি দাবি করে গোপনে কাগজে কলমে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে ২০১৪ইং সালে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষিকা পদে আবেদন করেন। পরবর্তীতে সুকৌশলে অভিনব পন্থায় ২০১৬ইং সালে ১৯শে জানুয়ারী চাকরিতে যোগদান করেন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে- সদর ইউনিয়নের ছিট রাজিব দুন্দী পাড়া গ্রামের জাহিদুল ইসলামের মেয়ে সূর্যি আক্তার একই গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ তমিজউদ্দিন কে ভুয়া নানা বানিয়ে মুক্তিযোদ্ধার নাতনির কোটায় দীর্ঘ পাঁচ বছর ধরে চাকরি করে আসতেছেন। পরবর্তীতে ভুয়া নানার মুক্তিযোদ্ধা কোটায় নাতনির চাকরি করার বিষয়টি জনসম্মুখে প্রকাশ হলে এ নিয়ে এলাকায় তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে।

এ ব্যাপারে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দুল ওহাব জানান- শিক্ষিকা সূর্যি আক্তারের মা, মর্জিনা ওরফে মহছেনা একই গ্রামের মৃতঃ মোফাজ্জল হোসেন মাস্টারের মেয়ে। বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ তমিজউদ্দিনের মর্জিনা কিংবা মহছেনা নামে কোন মেয়ে ছিল না। ওনারে নাম মর্জিনা, ওনারে নাম মহছেনা। এই নামে তার কোন মেয়ে মারা যায়নি। শিক্ষিকা সূর্যি আক্তার তার কোন নাতনিও নয় এবং তাদের সাথে মুক্তিযোদ্ধার পরিবারের কোনো আত্মীয়তার সম্পর্কও নেই।

তিনি আরও জানান- ওই মুক্তিযোদ্ধা সাত সকালে ঘুমের ঘোরে সুকৌশলে সূর্যি আক্তারকে ওয়ারিশান সনদপত্রে নাম অন্তর্ভুক্ত করে স্বাক্ষর নেন। কিশোরগঞ্জ উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি ও একই গ্রামের বাসিন্দা প্রাণ কৃষ্ণ রায় প্রান্ত জানান, মুক্তিযোদ্ধার মর্জিনা কিংবা মহছেনা নামে কোন মেয়ে ছিল না, সূর্যি আক্তার তার কোন নাতনিও নয়।আমার জানা মতে ওনার (মুক্তিযোদ্ধার) তিন ছেলে, তিন মেয়ে রয়েছে।

প্রকৃতপক্ষে শিক্ষিকা সূর্যি আক্তার একই গ্রামের মৃতঃ মোফাজ্জল হোসেন মাস্টারের নাতনি। এ ব্যাপারে বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ তমিজ উদ্দিন বলেন, মর্জিনা বেগম নামে আমার কোন মেয়ে ছিলনা এবং সূর্যি আক্তার নামে আমার কোন নাতনিও নাই।

আবারও জানতে চাইলে তিনি সমস্বরে জানান- বললাম তো, নারে বাবা না, মর্জিনা নামে কোন মেয়েও নেই, সূর্যি আক্তার নামে আমার কোন নাতনি ও নাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

আর্কাইভ

SatSunMonTueWedThuFri
21222324252627
282930    
       
    123
18192021222324
       
   1234
567891011
12131415161718
19202122232425
262728293031 
       
 123456
78910111213
14151617181920
21222324252627
282930    
       
©  2019 copy right. All rights reserved © 71sangbad24.com ltd.
Design & Developed BY Hostitbd.Com